ওয়েবসাইট প্রমোশন কি? ওয়েবসাইট প্রমোশন করার সহজ উপায়।

ওয়েবসাইট প্রমোশন মুলত একটি মার্কেটিং কৌশল যেটা একটি ওয়েবসাইট এর ভিজিবিলিটি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। ওয়েবসাইট প্রমোশন আপনার বিজনেস বড়াতে…।

1024 VIEWS

ওয়েবসাইট-প্রমোশন

ওয়েবসাইট প্রমোশন মুলত একটি মার্কেটিং কৌশল যেটা একটি ওয়েবসাইট এর ভিজিবিলিটি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

উদাহরনসহ, শিখুন কীভাবে ওয়েবসাইট প্রমোশন কাজ করে; যেমন, ওয়েবসাইট প্রমোশন এর প্রকারভেদ বা ধরন, এবং আপনার ওয়েবসাইট এর ভিজিবিলিটি বৃদ্ধির জন্য প্রমোশনাল প্লান তৈরির সেরা উপায়।

ওয়েবসাইট প্রমোশন কী?

ওয়েবসাইট প্রমোশন বলতে বোঝায় অনলাইন এবং অফলাইন মার্কেটিং এর বিভিন্ন কৌশলের সংগ্রহ; যেগুলো ওয়েবসাইট এর ভিজিবিলিটি বৃদ্ধি করতে ব্যবহার করা হয়, যাতে মানুষ এগুলো খুজে পায়।

এই কৌশল সমূহ মুলত ডিজাইন করা হয় আপনার ওয়েবসাইট এ ভিজিটর বাড়ানোর জন্য; যেটা ব্যবসার জন্য খুবই প্রয়োজনীয় এবং এটা আপনার সেবা বা পণ্যসামগ্রী বিক্রি করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

কীভাবে ওয়েবসাইট প্রমোশন কাজ করে?

ধরুন আপনি একটি গৃহভিত্তিক ব্যবসা পরিচালনা করলেন; যেমন, ব্লগ, ই-কমার্স অথবা ক্যাটারিং পরিসেবা এবং ওয়েবসাইট তৈরি করে, কন্টেন্ট যুক্ত করলেন এবং আশা করলেন গ্রাহকেরা এটা খুজে পাবে।

পণ্য বিক্রয় করা যদি আপনার লক্ষ্য হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনাকে ওয়েবসাইট প্রমোট করতে হবে।

সবকিছু শেষে, গুগল সাধারনত প্রতি পেইজে মাত্র ১০ টির মতো রেজাল্ট প্রদর্শন করে থাকে।

বেশিরভাগ মানুষ যখন গুগলে কেন জিনিস সার্চ করে তখন প্রথম কয়েকটি রেজাল্ট দেখে তারা সার্চ করা বন্ধ করে দেয়।

প্রমোশনাল কৌশল ছাড়া, গ্রাহকেরা আপনার ওয়েবসাইট পর্যন্ত পৌছানোর পূর্বেই আপনার প্রতিদ্বন্দী দের ওয়েবসাইট খুজে পেয়ে যাবে। যদি তারা আপনার ওয়েবসাইট সহজে খুজেই না পায়; তাহলে এটিই আপনার ব্যবসার ক্ষতির জন্য যথেষ্ট।

এই ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে আপনি যে কৌশলটি হাতে নিবেন সেটিই হচ্ছে মুলত ওয়েবসাইট প্রমোশন। এটার জন্য অনেকগুলো পথ আছে।

উদাহরনস্বরুপ, মারিয়া এবং জ্যাক রাজধানীতে একটি গৃহভিত্তিক ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করলেন; যেটা মুলত বিবাহ অনুষ্ঠানে খাবার সরবরাহ করে। তারা তাদের একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট ও তৈরি করলেন যেখানে তারা খাবার মেন্যু, খাবারের দাম এবং কোথায় কোথায় তারা ডেলিভারি করতে পারবে সেগুলো যুক্ত করলেন; এরপর তারা বহুমুখী প্রমোশনাল কৌশল অবলম্বন করলেন।

মারিয়া তার ব্যবসার প্রচারের জন্য শুধুমাত্র তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বন্ধুদেরকেই বলেনি, সাথে সাথে সে গুগল অ্যাডস(বিজ্ঞাপন) কেও ব্যবহার করল।

অপরদিকে, জ্যাক তার ব্যবসার প্রচারের জন্য ইউটিউব-এ একটি চ্যানেল খুলল এবং তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম(ফেইসবুক, টুইটার)-এ একটি বড় প্লাটফর্ম দাড় করালো।

সে প্রথমে, ইউটিউব এ রান্নাঘর থেকে (behind-the-scene) ভিডিও সমুহ পোস্ট করত এবং পরবর্তীতে রান্নার প্রস্তুত প্রণালী পালাক্রমে ইউটিউব , ফেইসবুক, টুইটার এ পোস্ট করত।

এরপর তারা ‘Search Engine Optimization’ (SEO) এর মাধ্যমে ওয়েবসাইট প্রমোট করল। তারা একটি SEO ফার্ম ভাড়া করলেন যেটা তাদের ওয়েবসাইট কে কিছু keyword বা কিছু Article এর সাহায্যে তাদের ওয়েবসাইট কে হাই র‌্যাংকিং এ পৌছে দিল।

তাদের এই সকল কৌশল তাদের ওয়েবসাইট কে গুগল সার্চ এর ১ম এ নিয়ে আসল। ফলে তাদের ব্যবসার প্রচুর প্রসার ঘটল।

বেশিরভাগ মানুষ যখন গুগলে কেন জিনিস সার্চ করে তখন প্রথম কয়েকটি রেজাল্ট দেখে তারা সার্চ করা বন্ধ করে দেয়; যদি আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে টাকা উপার্জন করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইট এর র‌্যাংকিং বাড়াতে হবে।

ওয়েবসাইট প্রমোশন এর প্রকারভেদ।

ওয়েবসাইটকে অনলাইন এবং অফলাইন উভয়ভাবেই প্রমোট করা যায়; এই দুই প্রকার এর মধ্যে অনেক কৌশল রয়েছে যেগুলো ওয়েবসাইট প্রমোশন এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ওয়েবসাইট প্রমোশন

অনলাইন ওয়েবসাইট প্রমোশন।

অনলাইন ওয়েবসাইট প্রমোশন মুলত ইন্টারনেট নির্ভর। নিচে বিস্তারিত বর্ণনা করা হলঃ

online promotion

০১. সার্চ ইন্জিন অপটিমাইজেশন (SEO):

SEO আপনার ওয়েবসাইটকে গুগল সার্চ লিস্টে হাই র‌্যাঙ্কিংয়ে নিয়ে আসে। আগেও বলা হয়েছে বেশিরভাগ মানুষ যখন গুগলে কোন জিনিস সার্চ করে তখন প্রথম কয়েকটি রেজাল্ট দেখে তারা সার্চ করা বন্ধ করে দেয়।

আপনার ওয়েবসাইট যখন SEO করা থাকবে তখন কেউ কোন গুরুত্বপুর্ণ keyword সার্চ করলে; আপনার ওয়েবসাইট টি র‌্যাঙ্কিং এ চলে আসবে।

০২. ই-মেইল মার্কেটিং:

আপনার ব্যবসার সকল আপডেট যারা ই-মেইলে পেতে আগ্রহী তাদের ই-মেইল সংগ্রহ করতে হবে। এরপর ব্যবসার প্রসারের জন্য প্রতিদিন তাদেরকে সময়মতো পণ্যেরে আপডেট ই-মেইল করে পাঠাতে হবে; প্রয়োজনে ই-মেইল এর লিস্ট তৈরি করে নিতে হবে।

০৩. কন্টেন্ট মার্কেটিং:

কন্টেন্ট মার্কেটিং বলতে মুলত বোঝায় নিজের বা অন্য কারো ব্লগে আপনার কন্টেন্ট এর জন্য ব্লগ পোস্ট তৈরি করা যেটা বিক্রি বাড়াতে সাহায্য করে।

০৪. সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং:

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমন ফেইসবুক, টুইটার এ প্রোফাইল তৈরি একটি বড় প্লাটফর্ম দাড় করানো। এর মাধমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটকে আপনার বন্ধুদের ও গ্রাহকের মধ্যে প্রচার করতে পারবেন।

০৫. ডিজিটাল মার্কেটিং:

ডিজিটাল মার্কেটিং পেইড এবং আনপেইড বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটকে প্রমোট করে। এটি অন্যান্য ওয়েবসাইটে বা সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার ওয়েবসাইটকে বিজ্ঞাপন হিসেবে প্রদর্শন করে।

যেমন: ব্যানার আকারে বা সাইটের উপরে বা নিচে; আর আপনার ওয়েবসাইটকে সার্চ ইন্জিন এ সবচেয়ে উপরে দেখায় যখন ব্যবহারকারী আপনার সাইট বা ব্যবসা রিলেটেড কিছু সার্চ করে।

example of paid ads

০৬. পোডকাস্টিং:

পোডকাস্ট হচ্ছে সম্প্রচার বা ডাউনলোডের জন্য অডিও ফাইল। আপনি আপনার বা অন্য কারো অনুষ্ঠানে দর্শকদের জন্য পোডকাস্টিং করতে পারেন।

অফলাইন ওয়েবসাইট প্রমোশন

অফলাইন ওয়েবসাইট প্রমোশন ইন্টারনেটের উপর নির্ভর করে না। নিচে বিস্তারিত বর্ণনা করা হলঃ

০১. সরাসরি মেইল:

এগুলো শারিরীক ভাবে বিজ্ঞাপনের উপাদান যার মাধমে গ্রাহকদের টার্গেট করে ওয়েবসাইট পরিদর্শন বা পণ্য কেনার জন্য সরাসরি বার্তা পাঠানো হয়।

০২. পত্রিকায় বিজ্ঞাপন:

প্রিন্টিং বিজ্ঞাপন হচ্ছে নিউজপেপারে বা ম্যাগাজিনে বিজ্ঞাপন দেওয়া। জাতীয় পত্রিকাগুলোতে বিজ্ঞাপনের জন্য আলাদা জায়গা থাকে।

০৩. টেলিভিশন এবং রেডিওতে বিজ্ঞাপন:

যদি আপনার যথেষ্ট বাজেট থাকে তাহলে আপনি টেলিভিশন এবং রেডিওতে বিজ্ঞাপনের কথা ভাবতে পারেন। সবসময় মনে রাখবেন রেডিও থেকে টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন খরচ অনেক বেশি।

০৪. প্রেস রিলিজ:

প্রেস রিলিজ আপনার ব্যবসাকে হাইলাইট করার জন্য একটি ডকুমেন্টস।

যখন আপনি কোন ডকুমেন্ট তৈরি করে ফেলবেন তখন সেটা প্রকাশ করার জন্য পত্রিকা বা রেডিও স্টেশনে জমা দিয়ে দিন।

০৫. নেটওয়ার্কিং :

আপনার ব্যবসার ওয়েবসাইটের লিংক আপনার ব্যবসায়িক বা ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক এর মধ্যে শেয়ার করুন প্রয়োজনে বিজনেস কার্ড ব্যবহার করুন।

০৬. আর্টিকেল লেখা:

নিউজপেপারে বা ম্যাগাজিনে পাবলিশ করার জন্য আপনার ব্যবসার ওিয়েবসাইটের লিংকসহ আর্টিকেল লিখুন।

টিপসঃ মোটকথা ওয়েবসাইট প্রমোশন খুবই সহজ এবং কার্যকরী যদি আপনি সঠিক মার্কেটিং কৌশলকে বেছে নেন। আপনার ব্যবসায়িক বা ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক, বন্ধুদের মধ্যে URL শেয়ার করুন।

কীভাবে ওয়েবসাইট প্রমোশন পরিচালিত হয়।

আপনার ওয়েবসাইট এর মার্কেটিং এর জন্য নিচের টিপস গুলো ফলো করুন:

১. আপনার টার্গেট মার্কেট খুজে বের করুন:

আপনার ওয়েবসাইট এ মিলিয়ন ভিজিটরের মানে কিছুই দাড়াবে না যদি না তাদের কেউ আপনার অফার গুলোকে পছন্দ করে।

আপনার লক্ষ্য হতে হবে টার্গেট মার্কেট থেকে ভিজিটর বৃদ্ধি করা। আপনি সেই টার্গেট মার্কেট খুজে বের করুন; যেখানে গ্রাহকের যথেষ্ট বাজেট আছে এবং যারা ক্রয় করতে পছন্দ করে।

২. একটি সমন্বিত পথ বেছে নিন:

প্রমোশনাল কৌশল বৈচিত্রময় করতে আপনি একটি আউটলেট গ্রহন করতে পারেন যেখানে আপনি প্রতিরোধ্য। আপনাকে সব সোশ্যার মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম কে বেছে নেওয়ার দরকার হবেনা।

৩. যেখানে আপনার টার্গেট মার্কেট আছে:

যদি আপনার মার্কেট টুইটারে না থাকে তাহলে আপনার টুইটারের প্রয়োজন নেই। যেখানে আপনার সিমিলার মার্কেট আছে সেখানেই আপনি প্রমোট করুন।

৪. আপনার প্রচেষ্টা চিহ্নিত করুন:

আপনি আপনার অর্থ এবং সময় দুটিই বাচাতে পারবেন যদি আপনি জানতে পারেন কোন প্রমোশন কৌশল কাজে লাগছে আর কোনটি লাগছে না।

উদাহরনস্বরুপ, আপনি Google Analytics দ্বারা আপনার ওয়েবসাইট প্রতিদিন চেক করে দেখতে কতজন Search Engine ব্যবহার করে আপনার সাইট ভিজিট করছে।

রিলেটেড:- ওয়েবসাইটে বেশি ভিউ পাওয়ার ১০ টি সিক্রেট।

গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলী…..

  • ওয়েবসাইট প্রমোশন মুলত একটি মার্কেটিং কৌশল যেটা একটি ওয়েবসাইট এর ভিজিবিলিটি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।
  • প্রমোশন কৌশল আপনার বিক্রি বৃদ্ধিতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
  • আপনি যে সব অনলাইন প্রমোশন পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন; সেগুলো হল: সার্চ ইন্জিন অপটিমাইজেশন, ই-মেইল মার্কেটিং, কন্টেন্ট মার্কেটিং, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, ডিজিটালমার্কেটিং, পোডকাস্টিং এবং যে সব অফলাইন প্রমোশন পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন টেলিভিশন এবং রেডিওতে বিজ্ঞাপন, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন ইত্যাদি।
  • সর্বোত্তম ফলাফলের জন্য আপনার টার্গেট মার্কেট খুজে বের করুন, প্রমোট সেখানেই করুন যেখানে আপনার টার্গেট মার্কেট আছে; একটি সমন্বিত পথ বেছে নিন এবং আপনার প্রচেষ্টা চিহ্নিত করুন।

উইকিপিডিয়া লিংক: ওয়েবসাইট প্রমোশন

ছোটবেলা থেকেই আমার কাছে আকর্ষনের একটি বিষয় ছিল প্রযুক্তি। ধীরে ধীরে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেছি নেটওয়ার্ক টেকনোলজির সাথে। নিজের অভিজ্ঞতা ও টেকনোলজি সম্পর্কিত বিভিন্ন টিপস অন্যদের সাথে শেয়ার করার জন্য এই লেখালেখি শুরু করা...

মন্তব্য করুনঃ-