সাইটম্যাপ (sitemap) তৈরির উপায়।( Google Search Console)

সাইটম্যাপ কি?সাইটম্যাপ হল একটি ‍ওয়েবসাইটের নীল-নকশা অর্থাৎ একটি সাইটের কোথায় কোন কন্টেন্ট, টুল, পেজ আছে তার লিস্ট। Sitemap in Bengali

101 VIEWS

সাইট ম্যাপ (sitemap) তৈরির উপায়।

সাইটম্যাপ কি?

সাইটম্যাপ হল একটি ‍ওয়েবসাইটের নীল-নকশা অর্থাৎ একটি সাইটের কোথায় কোন কন্টেন্ট, টুল, পেজ আছে তার একটা লিস্ট। সাইটম্যাপ গুগলকে আপনার সাইটের সকল কন্টেন্ট খুজে পেতে সাহায্য করে। শুধু গুগল নয় অন্যান্য সার্চইঞ্জিনকেও সকল পেজ খুজে ইনডেক্স করতে সাহায্য করে।

সাইটম্যাপ আসলে আপনার সাইটের সকল কন্টেন্ট এর লিংক একজায়গায় এনে দেয়। সার্চইঞ্জিনকে ক্রল করতে ও আপনার সাইট তাদের ডাটা বেসে ইনডেক্স হতে সাহায্য করে। তাছাড়া গুগলকে বুঝতে সাহায্য কোন লিংকটি বা পেজটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ইউজারকে সকল পোস্ট ও পেজের লিংক দিয়ে সাহায্য করে।

ওয়েবসাইটে সাধারণত চার ধরণের সাইটম্যাপ থাকে:

  • সাধারন এক্সএমএল সাইটম্যাপ: সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত সাইটম্যাপ এটি। এটা সাধারণত XML ফরমেটে থাকে। এই সাইটম্যাপ সকল পেজের লিংক নিয়ে গঠিত।
  • ভিডিও সাইটম্যাপ: এটি ব্যবহার করার মূল উদ্দেশ্য থাকে গুগলকে বুঝতে সাহায্য করা যে এটি ভিডিও কন্টেন্ট।
  • ইমেজ সাইটম্যাপ: আপনার সাইটের হোস্টকৃত সকল ছবি খুজতে গুগলকে সাহায্য করে।
  • নিউজ সাইটম্যাপ: নিউজ সাইটগুলি এই সাইটম্যাপ ব্যবহার করে। গুগলকে বুঝায় এটি নিউজ এবং গুগল সেটিকে নিউজ ফিডে জায়গা দেয়।

কেন সাইটম্যাপ গুরুত্বপূর্ণ?

সার্চইঞ্জিন গুগল, ইয়াহু, বিং পেজকে ইনডেক্স করতে সাইটম্যাপের সাহায্য নিয়ে থাকে।

“যদি আপনার সাইটের সকল পেজ সুন্দর করে লিংকড অবস্থায় থাকে। তাহলে সার্চইঞ্জিনগুলির বট আপনার সাইটের সকল পেজ ইনডেক্স করে ফেলবে। তাও আবার কোনো সাইটম্যাপ ছাড়ায়। ”

তার অন্য অর্থ, আপনার হয়তো সাইটম্যাপের কোনো দরকার নেই। তাছাড়া সাইটম্যাপ না করলে এইওর কোনো ক্ষতি হয় না। এখন সাইটম্যাপ করবেন কিনা আপনার সিদ্ধান্ত।

কখনও কখনও সাইটম্যাপ সার্চইঞ্জিনকে অনেক সাহায্য করে সাইট র‌্যাংক করাতে। যেমন: আপনার ওয়েবসাইট নতুন হলে দ্রুত ইনডেক্স করাতে সাহায্য করে। আবার আপনার সাইটে অতিরিক্ত এক্সটার্নাল লিংক ব্যবহৃত হলেও তখন সাইটম্যাপের দরকার।

আবার আপনার সাইট যদি অনেক বড় হয়। যেমন: আপনার একটি ই-কমার্স সাইট আছে যেখাতে ৫০০০ পেজ ও অনেক এক্সটার্নাল লিংক আছে। তাছাড়া সবপেজগুলি ভালোভাবে লিংকআপ করা নয়। তখন আপনার সাইটকে ইনডেক্স করাতে গুগলকে সাইটম্যাপের উপর নির্ভর করতে হয়।

যাইহোক, কিভাবে সাইটম্যাপ জেনারেট করতে হয় ও এসিও-র জন্য অপটিমাইজ করা যায় তা আলোচনা করব।

সাইটম্যাপ তৈরির পদ্ধতি।

Yoast প্লাগিন ব্যবহার:

যদি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করেন, আপনি ইয়োস্ট এসিও প্লাগিনের মাধ্যমে সাইটম্যাপ পেতে পারেন।

This image has an empty alt attribute; its file name is yoast.jpg
yoast SEO Plugin

ইয়োস্ট এসিও প্লাগিনের সাইটম্যাপ অনেক ভালো ও আপডেটেড। ইয়োস্টের তৈরি সাইটম্যাপ অটোমেটিক আপডেটেড। অর্থাৎ আপনাকে আলাদা করে সাইটম্যাপ আপডেট করতে হবে না। সাইটে নতুন কোনো পেজ বা পোস্ট যোগ করলে আলাদা করে লিংক যোগ করতে হবে না, এটি অটোমেটিক আপডেট হবে।

ইয়োস্ট এসিও প্লাগিন ইনস্টল দিয়ে থাকলে। আপনার ব্রাউজারে এড্রেসবারে টাইপ করুন http://yourdomain/sitemap.xml যদি নিচের মতো সাইটম্যাপটি না আসে তবে ইয়োস্ট প্লাগিনের সাইটম্যাপ অপশনটি ইনেবল করুন। এবং আবার টাইপ করে দেখুন চলে আসবে।

This image has an empty alt attribute; its file name is XML_Sitemap_1EF131C6.png

Google XML sitemap generator প্লাগিন ব্যবহার:

আপনি ইয়োস্ট প্লাগিন বাদেও সাইটম্যাপ তৈরি করতে পারবেন। আরো অনেক ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন আছে যেটি দিয়েও সাইটম্যাপ বানাতে পারবেন। এমনই একটি প্লাগিন গুগল এক্সএমএল সাইটম্যাপ জেনারেটর

গুগল এক্সএমএল সাইটম্যাপ প্লাগিনের মাধ্যমে সাইটম্যাপ জেনারেট করলে এড্রেসবারে টাইপ করুন: https://yourdomain/xmlsitemap.xml দেখুন আপনার সাইটম্যাপটি প্রদর্শিত হবে।

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস ইউজার না হন। তাহলেও চিন্তার কারণ নেই, এক্সএমএল সাইটম্যাপ জেনারেটর সাইটটি থেকে সাইটম্যাপ জেনারেটকরতে পারবেন। এবং গুগল সার্চ কনসোলে যোগ করতে পারেন।

সাইটম্যাপ জেনারেটর

আপনি ইন্টারনেটে আরো অনেক উপায় পাবেন সাইটম্যাপ জেনারেট করার। আপনি যেকোনো উপায়ে সাইটম্যাপ জেনারেট করতে পারেন। তবে সাইটম্যাপ জেনারেট করার পর দেখবেন সাইটম্যাপটা নিচের ছবির মতো হয়েছে কিনা।

সাইটম্যাপ

যদি এমনটা হয়ে থাকে তবে আপনার সাইটম্যাপ ওকে। এবার আপনার সাইটম্যাপটি গুগল সার্চকনসোলে যোগ করার সময় এসে গেছে।

সাইটম্যাপটি গুগল সার্চ কনসোলে যুক্ত করা।

গুগল সার্চ কনসোলে আপনার সাইটম্যাপ যোগ করার জন্য সার্চ কনসোলে সাইন আপ করতে হবে।

গুগল সার্চকনসোল

স্টার্ট নাও [Start Now] বাটনে ক্লিক করুন। ক্লি করলে যদি গুগলে আপনার সাইন ইন করা থাকে তবে নিচের ছবির মতো উইন্ডো আসবে। না থাকলে আপনাকে সাইন ইন করতে বলবে। তখন আপনার জিমেইল দিয়ে সাইন ইন করবেন।

ডোমেইন নাম লিখুন

উপরের ছবির নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করবেন। অর্থাৎ ১নং চিহ্নিত ঘরে আপনার সাইটের ডোমেইন নাম https সহ লিখতে হবে। তারপর CONTINUE বাটনে ক্লিক করবেন। ক্লিক করার পর নিচের ছবির মতো একটি উইন্ডো আসবে।

ওনারশিপ ভেরিফিকেশন

নোট:- আপনি যেকোনো মেথডে আপনার সাইট ভেরিফাই করতে পারেন। আমরা Meta Tag অপশনের মাধ্যমে ভেরিফাই করেছি

ভেরিফাই ওনারশিপের মাধ্যমে আপনার সাইট ভেরিফাই করা হবে। আমাদের দেখানো নিয়মে করতে হলে, আপনাকে দ্বিতীয় অপশন Meta Tag সিলেক্ট করতে হবে। মেটা ট্যাগ সিলেক্ট করলে উপরের ছবির মতো আসবে। এবার মেটা ট্যাগ কপি করে আপনার থিম বা ওয়েবসাইটের পেস্ট করতে হবে। তারপর ভেরিফাই বাটনে চাপ দিতে হবে। আপনার সাইটে কোডটি পেস্ট না করলে ভেরিফাই হবে না।

আপনার সাইট ওয়ার্ডপ্রেসে হলে আপনি হেডার এন্ড ফুটার প্লাগিনের মাধ্যমে আপনার সাইটে কোডটি পেস্ট করতে পারেন।

আপনার সাইট ভেরিফাই হয়ে গেলে নিচের ছবির মতো একটি উইন্ড আসবে।

sitemap

সাইটম্যাপ ট্যাবে চলে যান। এড নিউ সাইটম্যাপ অপশনে আপনার সাইটম্যাপটি দিন। আপনার সাইটম্যাপের ধরন যদি ইয়োস্ট প্লাগিন ব্যবহার করেন তবে sitemap.xml এমন হবে। যদি এক্সএমএল সাইটম্যাপ জেনারেটর ব্যবহার করেন তবে xmlsitemap.xml হবে। যাইহোক আপনার সাইটম্যপের লিংকটি দিন।

আপনার সাবমিটের পর যদি “Sitemap index processed successfully” ,এমন মেসেজ দেয় বা স্টাটাসে success দেখায় তাহলে বুঝবেন গুগল আপনার সাইটম্যাপ গ্রহন করেছে।

সাইটম্যাপ সফলভাবে এড করার পর গুগল বট আপনার সাইট ইনডেক্স করাবে। আপনার সাইটের বিভিন্ন লিংকে ও পেজে সমস্যা থাকতে পারে। সবগুলো Coverage সেকশনে দেখেতে পারবেন।

কভারেজ সেকশনের মাধ্যমে দেখতে পারবেন কতগুলো লিংকে সমস্যা আসে। একটু নিচে স্ক্রল করলে দেখতে পাবেন কোন কোন লিংকে সমস্যা। সেখানে ক্লিক করলে বুঝতে পারবেন সমস্যার ধরণ। এই সমস্যা কিভাবে সমাধান করতে হবে সেখানে দেয়া থাকবে। যদি না থাকে তবে গুগলে একটু খোজ করেন সকল সমস্যার সমধান পাবেন।

প্রযুক্তির প্রতি চরম আকর্ষণ থেকেই টেলিকমিউনিকেশনে পড়ছি। প্রযুক্তির কঠিন বিষয়গুলি সহজভাবে মানুষকে বলতে খুবই ভাল্লাগে। এই ভালোলাগা থেকেই লেখালিখি শুরু। ওয়েব ডেভলপমেন্ট ও নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা আমার নেশা ও পেশা।

মন্তব্য করুনঃ-