Canonical tag: কিভাবে ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করব।

Canonical tag: কিভাবে ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করব। rel=canonical কি? অনপেজ এসইও করতে ক্যাননিকাল ট্যাগের কাজ।(Canonical tag in Bengali).

1058 VIEWS

ক্যাননিকাল ট্যাগ ব্যবহার

টেকনিক্যাল এসইও করার জন্য ক্যাননিকাল ট্যাগ (rel=canonical) খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ট্যাগ। গুগল, বিং(মাইক্রোসফট), ইয়াহু মিলে ২০০৯ সালে এটি উদ্ভাবন করে।

একটি সাইটে কোনো ডুবলিকেট বা একই রকম দেখতে কন্টেন্টের মধ্যে কোনটাকে সার্চইঞ্জিন র‌্যাংক করবে তা নির্ধারণ করে দেয়ার জন্য ক্যাননিকাল ট্যাগ তৈরি হয়। এটা বর্তমান সময়ে এসইওর জন্য একটা সমস্যা, যদি ক্যাননিকাল ট্যাগের সঠিক ব্যবহার না জানেন।

আজ আমরা এই টিউটোরিয়ালের মাধ্যমে জানব, ক্যাননিক্যাল ট্যাগ কি? এর সঠিক ব্যবহার কি? টেকনিক্যাল এসইওতে কি কি কাজের জন্য এটিকে ব্যবহার করা হয়।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ কি?

ক্যাননিকাল ট্যাগ ডুবলিকেট কন্টেন্ট বা একই রকম কন্টেন্ট এর মাধ্যে পড়ে সার্চইঞ্জিন যে কনফিউজ হয়; সে কোনটাকে র‌্যাংক তা দূর করে। মানে সার্চইঞ্জিনকে বলে দেয় আপনার সাইটের অনেকগুলো ডুবলিকেট কন্টেন্টের মধ্যে কোনটা আসল। এবং কোনটাকে র‌্যাংক করাতে চাই।

যেমন ধরুন আপনার সাইটের দুুটি পেজ আছে ১. https://bnlite.com/ ও ২. https://bnlite.com/amp. URL দুটির দিকে লক্ষ করলে দেখতে পাবেন দুটিই কিন্তু হোম পেজ কিন্তু একটি এএমপি ভার্সন অন্যটি মূল পেজ।

এখন সার্চইঞ্জিন এখানে একই পেজের ভিন্ন ইউআরএল হওয়া সত্বেও এটিকে দুটো পেজ হিসেবে বিবেচনা করবে। এবং দুটোকেই সে র‌্যাংক করানোর চেষ্টা করবে। এতে আপনার একটি পেজের র‌্যাংকিং সিগন্যাল বা র‌্যাংকিং জুস দুটো ইউআরএল এর মাধ্যে ভাগ হয়ে যাবে। ফলে আপনার কোনো ইউআরএলই ভালোভাবে র‌্যাংক হবে না।

এখানেই মূলত ক্যাননিক্যাল ট্যাগ কাজে আসে। ক্যাননিকাল ট্যাগ এমন একটি ট্যাগ যেটার মাধ্যমে আপনি সার্চইঞ্জিনকে বলেন যে, আমার এই ইউআরএলের পেজ র‌্যাংক করা।

এখন আপনার র‌্যাংকিং সিগন্যাল আর ভাগ হবে না সব একটি ইউআরএল পাবে এবং সাইট র‌্যাংক করানো সহজ হবে।

Canonical ট্যাগের স্ট্রাকচার:

ক্যাননিকাল ট্যাগ স্ট্রাকচার

কেন সাইটে ডুবলিকেট তৈরি হয়?

সাইটে ডুবলিকেট কন্টেন্ট তৈরি হওয়ার পেছনে দুটি কারণ থাকতে পারে। ১. টেকনিক্যাল ২. কন্টেন্ট।

১. টেকনিক্যাল:– আপনার সাইটে একই পেজের বিভিন্ন ভার্সনের কারণে তৈরি হয়। যেমন ধরুন, আমার সাইটের একই পেজের তিনটি ভার্সন রয়েছে; প্রিন্টেবল, এএমপি আর মাস্টার পেজ।

একই পেজের ডুবলিকেট কন্টেন্ট

এদের কন্টেন্ট বা পেজ একটি; কিন্তু সিএমএস ও বিভিন্ন টেকনিক্যাল কারনে এমন ইউআরএল হয়েছে। সার্চইঞ্জিন তো বুঝে না কোনটা আপনার পেজের মাস্টার কপি। মাস্টার কপিটা ক্যাননিক্যাল ট্যাগের মাধ্যমে চিনিয়ে দেওয়া হয়।

২. কন্টেন্ট: একই বিষয়ের উপর দুটো কন্টেন্ট লিখার ফলে টাইটেল দুটি এমন; কিংবা কন্টেন্ট দুটির ভিন্নতা আছে কিন্তু কিওয়ার্ড একই। যেমন:

এমন অবস্থায় আপনার সাইটের দুটি কন্টেন্ট একই কিওয়ার্ডের জন্য লড়বে। অর্থাৎ আপনার টার্গেটেড কিওয়ার্ড দিয়ে কোনো ইউজার গুগলে সার্চ দিলে দুটো কন্টেন্টই র‌্যাংক করানোর চেষ্টা করবে। ফলে দুটোর একটাও ভালোভাবে র‌্যাংক করতে পারবে না।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহারে লাভ

ক্যাননিকাল ট্যাগ মানে সার্চইঞ্জিনকে কমান্ড করা নয় বা আদেশ দেয়া নয়। ক্যাননিকাল ট্যাগ ব্যবহার করে আপনি শুধুমাত্র সার্চইঞ্জিনকে হিন্ট দিচ্ছেন। সোজাসুজি বললে, আপনি সার্চইঞ্জিনকে হেল্প করছেন ডুবলিকেট কন্টেন্টগুলি বুঝতে।

অনেকসময় দেখবেন, আপনি ক্যাননিকালের মাধ্যমে সার্চইঞ্জিনকে টার্গেট পেজ দেখানোর পরেও অন্য পেজ র‌্যাংক করছে; এখানে আপনার কোনো ভুল নেই, আপনি নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন।

আসলে কনোনিকাল ট্যাগের মাধ্যমে আপনি শুধুমাত্র হিন্ট দিচ্ছেন। এখন সার্চইঞ্জিন আপনার হিন্ট না মানলে আপনার কিছু করার নেই।

ক্যাননিক্যাল ট্যাগ ব্যবহারের মূল লাভ হচ্ছে অনেকগুলো ডুবলিকেট কন্টেন্টের মধ্যে একটিকে ভালোভাবে র‌্যাংক করানো।

কোথায় ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করবেন

১. আসল পেজে ক্যাননিকাল: ধরুন আপনার কাছে একটি পেজের তিনটি ভার্সন পেজ-১, পেজ-২ এবং পেজ-৩। এখানে ক্যাননিকাল পেজ হচ্ছে পেজ-২। অনেকে ক্যাননিকাল ট্যাগ পেজ-১ ও পেজ-৩ এ দিলেও পেজ-২ তে দেয় না। যেটা আপনার সাইটে খারাপ প্রভাব বিস্তার করে।

২. হোম পেজে ক্যাননিকাল: অনেকের ভিতর একটা ভুল ধারণা কাজ করে যে, হোমপেজে ক্যাননিক্যাল ব্যাবহার করা লাগবে না। অবশ্যই হোমপেজে ক্যাননিকাল ট্যাগ দেয়া যাবে এবং ব্যবহার করা ভালো।

৩. সিগন্যাল মিক্সিং: আমরা ১নং পয়েন্টের দিকে খেয়াল করলে দেখতে পাব সেখানে পেজ-১ ও পেজ-৩ তে ক্যাননিকাল ব্যবহার করলেও পেজ-২ তে করা হয়নি। এমন করলে সমস্যা হচ্ছে গুগল বট ক্লিয়ার ইনস্ট্রাকশন পায় না।

এখানে গুগল সিগন্যালটা এমন ভাবে নিবে যে, পেজ-১ ও ৩ তো পেজ-২কে আসল মানছে কিন্তু পেজ-২ তো নিজেকে আসল দাবি করছে না। এখানে বট কনফিউজ। তাই সবচেয়ে ভালো হয় পেজ-২ কেও ক্যাননিকাল দিয়ে দেওয়া।

৪. ডুবলিকেটের কাছাকাছি: ধরুন আপনার সাইটে কাছাকাছি দুটি ডুবলিকেট কন্টেন্ট একেবার ডুবলিকেট নয়। তখন আপনার উচিৎ যেকোনো একটিকে ক্যাননিকালাইজ করা।

৫. ক্রসডোমেইন ডুবলিকেট কন্টেন্ট: ধরুন আপনার কাছে দুটি ডোমেইন আছে; দুটি ওয়েবসাইটের কিছু কন্টেন্ট একই কিওয়ার্ড বা একই টপিকের উপর অথবা পুরোপুরি ডুবলিকেট। ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি যেকোনো একটি ডোমেইনের কন্টেন্ট র‌্যাংক করাতে পারেন।

ক্যানোনিক্যাল ট্যাগ Vs 301 রিডাইরেক্ট

৩০১ রিডাইরেকশন এবং ক্যাননিক্যাল ট্যাগের ভিতর কোনো সম্পর্ক নেই। দুটো প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ ভিন্ন এবং দুটির ফলাফল ভিন্ন।

ধরুন, আপনি পেজ-১ কে ৩০১ রিডাইরেক্ট করে পেজ-২ করলেন। তখন ইউজার পেজ-১ এ ভিজিট করতে পারবে না। যখনই পেজ-১ এ ভিজিট করতে যাবে ৩০১ করে পেজ-২ তে চলে যাবে।

কিন্তু ক্যাননিকাল ট্যাগে তেমনটা হবে না। ইউজার চাইলেই পেজ-১ এ ভিজিট করতে পারবে।

আপনার সাইটে ক্যানোনিকাল ট্যাগ আছে?

আপনি ক্যানোনিক্যাল ট্যাগের সুবিধা সম্পর্কে কিছু জেনেছেন বলে আশা করি। এখন আপনি ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহরে ইচ্ছুক।

ক্যাননিকাল ট্যাগ ব্যবহারের আগে জানতে হবে আপনার সাইটে ক্যাননিকাল ট্যাগ আছে কি না? তা জানা খুবই সহজ।

স্টেপ-১: আপনার সাইটের যে পেজে ক্যাননিক্যাল ট্যাগ লাগাতে চান সেই পেজে জান; গিয়ে মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করুন। নিচের ছবির মতো অপশন আসবে সেখান থেকে View Page Source অপশনটা সিলেক্ট করুন।

View Page Source

স্টেপ-২: View Page Source করার পর নিচের মতো একটি উইন্ডো আসবে, এবার Ctrl+F করলে চিহ্নিত ১নম্বরের মতো সার্চবক্স আসবে; এই বক্সে “canonical” শব্দটা লিখুন।

canonical tags find

যদি শব্দটা আপনার সাইটে থাকে তবে ক্যাননিক্যাল লিংকটি দেখুন। আশা করি আপনার সাইটে ক্যাননিক্যাল ট্যাগ আছে।

আপনার সাইট ওয়ার্ডপ্রেসে করা থাকলে, ক্যাননিকাল ট্যাগের জন্য প্লাগিন ইনস্টল দিন। যদি ইয়োস্ট এসইও প্লাগিন আপনার সাইটে ইনস্টল দেয়া থাকে; তবে সেখান থেকে কনোনিকাল সেট করতে পারবেন।

যদি আপনার সাইট ব্লগারে থাকে তবে চিন্তার কারণ নেই; আপনার সাইটে ক্যাননিকাল বাই ডিফল্ট থাকার কথা। না থাকলে হয়তোবা থিমের সমস্যা হতে পারে।

আপনার সাইট যদি ব্লগার বা ওয়ার্ডপ্রেস দুটোর কোনোটাতে করা না থাকে। তবে যে প্লাটফর্মে করা সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিন।

ক্যানোনিক্যাল সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন ও উত্তর:

  • ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার কি জরুরী?
    • অবশ্যই। ২০২১ যখন সবাই তাদের সাইট গুগলে র‌্যাংক করানোর জন্য লড়ছে। ক্যাননিক্যাল ট্যাগ আপনার সাইটকে একধাপ এগিয়ে রাখবে।
  • ক্যাননিক্যাল ট্যাগ কোথায় ব্যবহার করত হয়?
    • ক্যাননিক্যাল ট্যাগ <head><head> হেড ট্যাগের ভিতর ব্যবহার করা হয়।
  • এসইও করতে ক্যাননিকাল ট্যাগের কোনো প্রভাব আছে?
    • এসইও করতে ক্যাননিক্যাল ট্যাগের গুরুত্ব অনেক; বিশেষকরে যখন আপনার সাইটে ডুব্লিকেট কন্টেন্ট আছে।
  • কিভাবে canonical issues ফিক্স করতে হয়?
    • আপনি ক্যাননিকালাইজেশন ইস্যু দুইভাবে সমাধান করা যায়। ১. ক্যাননিকাল ট্যাগ ব্যবহার ২. ৩০১ রিডাইরেক্ট

প্রযুক্তির প্রতি চরম আকর্ষণ থেকেই টেলিকমিউনিকেশনে পড়ছি। প্রযুক্তির কঠিন বিষয়গুলি সহজভাবে মানুষকে বলতে খুবই ভাল্লাগে। এই ভালোলাগা থেকেই লেখালিখি শুরু। ওয়েব ডেভলপমেন্ট ও নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা আমার নেশা ও পেশা।

মন্তব্য করুনঃ-