AMP কি ?AMP কি এসিও করতে সাহায্য করে? AMP ইনেবল করার উপায়।

AMP কি ? AMP কি এসিও করতে সাহায্য করে? AMP = Accelerated Mobile Pages. how to enable AMP for WP in Bengali. AMP Plugin in Wordpress.

1053 VIEWS

Accelerated Mobile Pages

বিশ্ব এখন হাতের মুঠোয় আপনার মোবাইলে। AMP ওয়েবসাইটের মোবাইল ফ্রেন্ডলি করে।

কিন্তু আপনার কি সাইটটি মোবাইল ফ্রেন্ডলি তৈরি করতে, কিছু টাকা খরচ করা উচিৎ নয়। আধিকাংশ ব্লগার তার সাইটটি মোবাইল ফ্রেন্ডলী করতে টাকা খরচ করতে রাজি নয়।

বর্তমানে অধিকাংশ ইন্টারনেট ইউজার মোবাইল ব্যবহার করে। মোবাইল ছোট ও সহজে বহনযোগ্য হওয়ায় মানুষ ব্যপকভাবে ব্যবহার করছে; তাছাড়া ইন্টারনেটের প্রায় সকল ব্যক্তিগত কাজ মোবাইল দ্বারা সম্ভব।

আপনার সাইট যদি মোবাইল ফ্রেন্ডলি না হয় তবে পাঠক আপনার ব্লগ পড়তে পারবে না। আমি এখানে রেসপনসিব সাইট ডিজাইনের কথা বলছি না; আমি সাইটের দ্রুত পেজ লোডের বিষয় আলোচনা করব।

দ্রুত আপনার পেজ লোড করার জন্য গুগল এএমমটি (অ্যাক্সিলারেটেড মোবাইল পেজেস) প্রজেক্ট হাতে নিয়েছে। এই প্রজেক্ট গুগল শুরু করে ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬। এবং বর্তমানে আরো উন্নতিতে কাজ চলছে।

AMP এর ইতিহাস উকিপিডিয়ায়।

এসব বিষয় বেশি আলোচনা করব না। কারণ এর এসইও-র উপকারীতা নিয়ে অনেক কথা বলতে হবে।

AMP মূলত আপনার সাইটের পেজ লোড অনেক দ্রুত করবে। একটি গবেষণা বলছে ৩ সেকেন্ডর মধ্যে পেজ লোড না হলে ৫০% ইউজার চলে যায়।

AMP এর কাজ সাইটের লেডিং টাইম কম করা।

SEO ক্ষেত্রে AMP: Accelerated Mobile Pages?

AMP পেজগুলো মোবাইল সার্চে সবসময় আগে দেখায়। তাছাড়া মোবাইল ইউজার এক্সপেরিয়েন্স ফিডব্যাক ভালো পাওয়ার কারণে বেশি র‌্যাংক করে; যেটি এসইওর ক্ষেত্রে অনেক বেনিফিট দেয়। নিচে আরো কিছু পয়েন্ট:

১. এসইওর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় উপকার হয় এইজন্য যে, এটি গুগলের গুগল নিউজ কারসেলে (Google News carousel) প্রদর্শন করে। নিউজ ফিডে থাকার কারণে যেকোনো মেবাইল সার্চে সবার আগে প্রদর্শন করে।

তাছাড়া AMP পেজ মানে বেশি মনোযোগ আকর্ষন। এএমপি পেজ পেলে পাঠক সহজে ক্লিক করে পড়ার জন্য। যাতে তেলা মাথায় তেল দেয়া মতো এসইও আরো বুস্ট হয়।

২. লোডিং টাইস কমের ফলে দ্রুত SERP: AMP পাওয়া কন্টেন্ট এর লোডিং টাইম মোবাইল ডিভাইনের জন্য খুবইম কম হয়ে থাকে।

আপনার পেজ লোড স্লো হলে অনেক ইউজার কন্টেন্ট না দেখে চলে যায়। পেজ লোড ৬সেকেন্ডের বেশি হলে অনেক ইউজার ধৈয্য রাখতে পারে না। তারা পেজ স্কিপ করে চলে যায়।

৩. বাউন্সরেট: লোডিং টাইম কম হলে ইউজার মনে করে কন্টেন্ট কম, তারা দ্রুত পড়ে শেষ করতে পারবে; এতে বাউন্স রেট কমে যায়। যেটা গুগলে পেজ র‌্যাংক করাতে অনেক কার্যকারী ভূমিকা পালন করে।

কারন বাউন্স রেট গুগলের পেজ র‌্যাংকের অনেক বড় একটি সুচক।

আপনার সাইট ও পেজের জন্য AMP পাওয়ানোর চেষ্টা করুন। ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে বিভিন্ন প্লাগিন দিয়ে করা যায়।

এএমপি শুধু গুগল সার্চ র‌্যাংকের জন্যই জরুরী নয়, ইউজার ইন্টারেকশন ও পাঠকসম্পদায়কে অনেক আকর্ষন করে।

AMP কিন্তু পেজ র‌্যাংকের কোনো সূচক নয়। এটি সরাসরি পেজ র‌্যাংক করাতে সাহায্য করে না।

AMP পেজগুলি এখন গুগল ব্যাংকে

অনেক ব্লগার এএমপি প্রজেক্ট ব্যবহার করে গুগলে পেজ র‌্যাংক করেছে। আপনিও এদের মধ্যে একজন হতে পারবেন।

আপনি বর্তমানে সার্চকরে দেখুন যদি আপনার সার্চকৃত কোনো পেজ AMP পায় তবে তা ‍সবার উপরে।

কিছু স্ক্রীনসর্ট:-

সার্চ রেজাল্ট: covid-19 news. AMP প্রজেক্ট পাওয়া পেজগুলো আগে শো করেছে।

কালো বৃত্তের মাধ্যমে AMP লোগো দেখানো হয়েছে।
কালো বৃত্তের মাধ্যমে AMP লোগো দেখানো হয়েছে।

election new দিয়ে সার্চদিলে এই পেজ আসে।

AMP symble
AMP symble

আমি উপরের ছবির মাধ্যমে দেখাতে চেয়েছি AMP প্রজেক্ট পাওয়া পেজগুলি সবার আগে আসে। আপনার ব্লগসােইটটা এএমপি প্রজেক্টের আওতায় আনকে চেষ্টা করুন।

এএমপি কিভাবে এনাবেল করবেন ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে।

ব্লগার হিসেবে আপনার ব্লগকে অবশ্যই এএমপি প্রজেক্টের আওতায় আনা উচিৎ। কিন্তু কিভাবে এডড করব এএমপি প্রজেক্ট? আপনার সাইট যদি ওয়ার্ডপ্রেসে হয় তবে কাজটি খুবই সহজ। আপনার ড্যাশবোর্ড থেকে প্লাগিন আপশনে যান।

Plugin option
Plugin option

Click -> Plugins ক্লিক করুন।

Add AMP plugin

প্লাগিন পেজ ওপেন হওয়ার পর Add New বাটনে ক্লিক করুন

AMP plugin
  • উপরের মতো পেজ আসলে চিত্র -৩নং এর মতো সার্চ বাটনে ক্লিক করুন।
  • ৪নং বৃত্তের জায়গায় Install Now বাটনে ক্লিক করুন।
  • কিছুক্ষন অপেক্ষা করার পর ইনস্টল হয়ে যাবে। Active বাটন আসলে ক্লিক করুন।

আপনি AMP প্লাগিন ইনস্টল করে সহজে আপনার পেজ AMP সার্ভিসের আওতায় আনতে পারেন। প্লাগিন সঠিকভাবে কনফিগারেশন করবেন।

আপনাদের সুবিধার জন্য একটি কথা:

প্লাগিন ইনস্টল দিলেই আপনার সাইট এএমপি সার্ভিসের আওতায় আসবে তা নয়। এএমপি সার্ভিসটি পেতে হলে অনেক কিছু কন্ডিশন থাকবে। তার ভিতর আপনার পেজ আগেই SERP (সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাংকিং পেজ) এ থাকতে হবে।

JS ও CSS file-গুলো মিনিফাই ভার্সনে থাকতে হবে। এরকম অনেকগুলো শর্ত আছে। সেগুলো মানলে তবেই আপনি এএমপির আওতায় আসতে পারবেন।

Post Tags:-

প্রযুক্তির প্রতি চরম আকর্ষণ থেকেই টেলিকমিউনিকেশনে পড়ছি। প্রযুক্তির কঠিন বিষয়গুলি সহজভাবে মানুষকে বলতে খুবই ভাল্লাগে। এই ভালোলাগা থেকেই লেখালিখি শুরু। ওয়েব ডেভলপমেন্ট ও নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা আমার নেশা ও পেশা।

মন্তব্য করুনঃ-