মোবাইল দিয়ে আয় করার উপায়- ২০২১ | মোবাইল দিয়ে কী আয় করা যায়

মোবাইল দিয়ে কী আয় করা যায়? হ্যা, অবশ্যই যাই। আমি আজকে শেয়ার করব মোবাইল দিয়ে কত রকম ভাবে আয় করা যায় তার সবকিছু।

202 VIEWS

মোবাইল দিয়ে আয় করার উপায়

মোবাইল দিয়ে কী আয় করা যায়? এমন প্রশ্ন আপনার মনে এসেছে, আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে চান। আমি মোবাইল দিয়ে আয় করার উপায় নিয়ে কিছু বিষয় শেয়ার করব। একটু ধৈয্য ধরে পড়বেন, কারণ আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে চান।

মোবাইল একটি টুল, এটাও কম্পিউটারের মতো আমি খুব বেশি পার্থক্য পাই না। আপনি চাইলে মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করতে পারেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই।

শুরু করার আগে একটি কথা বলে নেই, দুইভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যায়। ১. শর্টকার্টে বা ভুয়া উপায়ে, ২. লং টার্ম বা একটু কষ্ট করে। শর্টকাটে মোবাইল দিয়ে আয়টা নিয়ে পরে কথা বলব। আগে কষ্ট করে বা আসল ইনকাম নিয়ে কথা বলি। (earn money online with mobile in bengali)

২. লং টার্মে মোবাইল দিয়ে আয় করার উপায়:

মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে আয়:

আপনার হাতের স্মার্টফোনটি ব্যবহার করে আপনি ব্লগিং করে আয় করতে পারেন। মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করা যে অনেক কষ্টে বা ঝামেলার এমনটা নয়।

আপনি ফ্রি মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে আয় করতে পারেন। তার জন্য আপনার ব্লগার ডট কমে একটি একাউন্ট করতে হবে। সেখানে সবকিছু সেট করে লেখালেখি শুরু করুন।

তারপর এডসেন্সের জন্য আবেদন করুন। গুগল এডসেন্স এপ্রুভ করে দিলে আপনার সাইটে এডের মাধ্যমে ভালো রকমের আয় করতে পারেন। ব্লগে নানাভাবে আয় করা যায় জানতে নিচের পোস্টটি পড়তে পারেন।

মোবাইলে ইউটিউবিং করে আয়

মোবাইলে টাকা আয় করার জন্য ইউটিউব বেস্ট একটা মাধ্যম। এখন অনেকে বলবে, মোবাইলে কি ইউটিউবিং করা যায়? আমি জোর গলায় বলতে পারি অবশ্যই যায়।

বর্তমানে মোবাইলের ক্যামেরা অনেক উন্নতমানের, যেটা ডিজিটাল ক্যামেরার চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। তাছাড়া মোবাইলের জন্য ভয়ংকর রকমের ভিডিও এডিটর পাওয়া যায়। যেটা দিয়ে খুব ভালোমানের ভিডিও তৈরি করতে পারবেন।

ইউটিউবে সফল হওয়ার জন্য কম্পিউটার, ভলো সেটআপ, ক্যামেরা লাগবে এমন কথা নয়। অনেক বড় ইউটিউবার আছে যারা এখনও মোবাইল দিয়ে ইউটিউবের জন্য ভিডিও বানাই।

আপনার হাতে যা আছে তাই নিয়ে শুরু করুন, একদিন অবশ্যই সফল হবেন। শুধু দরকার একটু চেষ্টা। ইউটিউব দিয়ে কত রকম ভাবে আয় করা যায় জানতে পড়ুতে পারেন:- ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন: ৬টি উপায়

এফিলিয়েট ও সিপিএ মার্কেটিং করে আয়

অনলাইন থেকে মোবাইলের মাধ্যমে আয় করার জন্য এই কাজটা খারাপ নয়। অনলাইনে বিভিন্ন সাইট আছে যারা তাদের প্রমোশনের জন্য এফিলিয়েট লিংক দিয়ে থাকে।

আপনি সেগুলো নিয়ে মানুষকে ব্লগ বা ইউটিউবের মাধ্যমে রেফার করতে পারেন। আপনার এফিলিয়েট লিংক ব্যবহার করলে আপনি একটি কমিশন পাবেন।

মন্তব্য: আপনি উপরের তিনটি কাজ করে সহজে মোবাইল দিয়ে আয় করতে পারেন। তবে এসব কাজে আয় আসতে একটু সময় লাগে। তাই আমার পরামর্শ থাকবে একটু দৈয্য ধরে কাজ করুন, ৬ মাস- ১বছর পর মোটামুটি মাসে ৫০,০০০-১,০০,০০০ আয় করতে পারবেন। এই কাজগুলো ভালোভাবে করতে পারলে আপনায় আয় হবে এটা ১০০% গ্যারান্টি সহকারে বলতে পারি।

১. শর্টকার্টে আয় বা ভুয়া আয়

দুঃখের বিষয় অধিকাংশ মানুষ এই পথে মোবাইল দিয়ে আয় করতে চাই। কষ্ট না করে আয় করা গেলে পৃথিবীর কেউ গবির থাকত না, এত সাধারণ বিষয় মানুষ বুঝতে চায় না!!!

আপনি মনে করতে পারেন, যেহেতু এই পথে আয় করা যায় না। তারপরও আমি এটা নিয়ে কেন আলোচনা করছি? ”আপনাদের সতর্ক করার জন্য”।

আমি নিচে যে কাজগুলোর কথা আলোচনা করব, সেগুলোর মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারেন। কিন্তু এই কাজগুলো করে টাকা আয় না হওয়ার যথেষ্ট রিস্ক রয়েছে। শুধু শুধু আপনার সময় ও ডাটা নষ্ট হতে পারে কাজগুলো করে।

Playment এপসে আয় করুন

Playment হচ্ছে বর্তমান সময়ের মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার জনপ্রিয় অ্যাপস। Playment Apps হচ্ছে একটি ইন্ডিয়ান অ্যাপস।

এই অ্যাপসটি শুধু ভারতের জনগন ব্যাবহার করে টাকা আয় করতে পারে। এই অ্যাপ থেকে ইনকাম করার জন্য আপনাকে তেমন কোন কাজ করতে হবে না। এই Playment Apps টি আপনি গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

Playment Apps গুগল প্লেস্টোর থেকে ডাউনলোড করার পর আপনার ফোনে ইন্সটল করে নেয়ার পর আপনাকে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে নিতে হবে।

এছাড়া আপনি এটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যাবহার করার ফলে খুব সহজে Playment Apps অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। পরবর্তীতে আপনাকে একটি সচল ফোন নাম্বার দিয়ে ভেরিফিকেশন এর মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট ভেরিফাই ও একটিভ করে নিতে হবে।

আপনার এই অ্যাকাউন্ট ভেরিফাই করার পর আপনাকে কিছু কিছু টাস্ক দিবে এবং তা পুরন করে করতে হবে বা কমপ্লিট করতে হবে।

এই Playment Apps এর টাস্ক কমপ্লিট করার পর আপনার অ্যাকাউন্টে টাকা জমা হতে থাকবে। এভাবে খুব সহজে মোবাইলের মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন।

টাকা আয় করার apps

Champ Cash থেকে আয় করুন

আপনি যদি মোবাইল দিয়ে Android App এর মাধ্যমে টাকা আয় করতে চান তাহলে আপনি Champ Cash ব্যাবহার করতে পারেন। এই Champ Cash এর নানা রকম সুবিধা রয়েছে।

আপনি Android App থেকে টাকা নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সরাসরি নিতে চাইলে তাহলে আপনি এই Champ Cash Android App ব্যাবহার করতে পারেন।

এর কারন হচ্ছে আপনি এই Champ Cash এর মাধ্যমে যে টাকা আয় করবেন তা সরাসরি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্র্যান্সফার করে নিতে পারবেন।

Champ Cash টাকা আয় করার জন্য ভালো একটি অ্যাপ। অ্যাপে আপনি সাইন আপ এর মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন। একবার সাইন আপ করার ফলে আপনার অ্যাকাউন্টে ১ ডলার যোগ হয়ে যাবে।

এর মানে একটি Android App ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিলেই আপনি পেয়ে যাবেন ১ ডলার। কি মজার বিষয় না বিনা পরিশ্রমে ১ ডলার আয় করা কত সহজ।

Champ Cash এর মাধ্যমে আপনি আরও নানা উপায়ে টাকা আয় করতে পারবেন। তার মধ্যে হলো Champ Cash app এ বিভিন্ন Friend invite করতে হবে এবং Income Junction, সার্ভে পূরন করা ইত্যাদি আরও অনেক কাজ করে এই Champ Cash করে টাকা আয় করা যায়।

টাকা আয় করার apps

Meesho app থেকে আয় করুন

মিশো একটা রিসেলিং অ্যাপ এখানে আপনি নতুন প্রোডাক্ট কে রিসেল করে ইনকাম করতে পারবেন।এই অ্যাপটি সম্পর্কে আরো বিস্তারিত ভাবে বলতে গেলে,

এখানে আপনি অনেকগুলো প্রোডাক্ট পেয়ে যাবেন সেই প্রোডাক্ট গুলা আপনাকে হোয়াটসঅ্যাপ,ফেসবুকের মধ্যে শেয়ার করতে হবে। আপনি আপনার প্রোডাক্ট গুলির রেট নির্ধারিত করবেন,

মানে আপনি কোন প্রোডাক্ট 100 টাকায় কিনলে সেটা আপনি 150, 200 টাকায় রিসেল করতে পারবেন।

Meesho সম্পূর্ণ ফ্রি অ্যাপ,আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে প্লে স্টোর থেকে আজ ই ডাউনলোড করতে পারবেন।

প্লে স্টোরে এই অ্যাপটি 10 মিলিয়ন ডাউনলোড হয়ে গেছে, এবং এর রেটিং প্রায় 4.4। এই অ্যাপ এর সাহায্যে long term এ আপনি মাসে 20 হাজার টাকা পর্যন্ত প্যাসিভ মোবাইলে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

ClipClaps অ্যাপ থেকে আয়

হ্যাঁ, ক্লিপক্ল্যাপস অ্যাপটি সমন্ধে আপনি হয়তো শুনে থাকবেন। বর্তমানে অন্যতম ও জনপ্রিয় একটি অ্যাপ এটি আর এর মাধ্যমে মানুষের ইনকাম যে হয় তারও বিভিন্ন প্রমাণ হয়তো আপনি দেখেছেন।

এখানে মূল যে কাজটি তা হলো আপনাকে ভিডিও দেখতে হবে ও একটি করে লাইক দিতে হবে। এর জন্য আপনি একটি অ্যামাউন্টের টাকা পাবেন। এছাড়াও অন্যদের রেফার করলে আপনার রেফারেন্সের জন্যও একটা অ্যামাউন্ট তারা আপনাকে দিবে।

মোবাইলের মাধ্যমে আয় করার দারুন কিছু এপস টাকা আয় করার apps এই পোস্টে দেয়া আছে। সময় থাকলে পড়তে পারেন।

কিছুকথা:

আপনি অনলাইনে মোবাইল ব্যবহার করে আয় করার হাজার রকমের উপায় খুজে পাবেন। আমার উদ্দেশ্য ছিল আপনাকে পথ দেখিয়ে দেয়া, কোন পথে আপনার মোবাইল ব্যবহার করে আয় করা উচিৎ আর কোনটায় উচিৎ নয়।

আপনার যদি পকেট মানি আয় করা চিন্তা থাকে, শর্টকাটের রাস্তা বেছে নিতে পারেন। আমি আপনাদের কিছু ট্রাস্টেড সাইট আছে সেগুলোর নাম বলে দেব, যা দিয়ে পকেট খরচের টাকা বের করতে পারবেন। যেকোনো অনলাইন আয় করার এপস বা ওয়েবসাইটে কাজ করে ঠকবেন না।

যদি মোটামুটি ভালোমানের আয় করতে চান বা অনলাইনে নিজের ক্যরিয়ার গড়তে চান তবে ১নং আপশনটা বেছে নিন।

শর্টকাটে মোবাইলদিয়ে আয় করার সবচেয়ে বড় সমস্যা ফ্রড বা ভুয় সাইট। অনলাইনে বিভিন্ন এপস ও টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট আছে যারা আপনাকে টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিবে, কিন্ত শেষপর্যন্ত পেমেন্ট করবে না।

বসে না থেকে apps দিয়ে 300 টাকা ইনকাম করুন এসব টাইটেল থেকে নিজেকে যত দুরে রাখবেন ততো ভালো।

বিঃদ্র: অনলাইনে যেসব এপসে আয় করার জন্য টাকা বিনিয়োগ বা ইনভেস্ট করতে হয় সেগুলো থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন (SPC apps)। তাদের কাজ সম্পর্কে জেনে চাইলে বিনিয়োগ করতে পারেন।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে বা বন্ধুকে সতর্ক করার উদ্দেশ্যে হলেও শেয়ার করুন।

প্রযুক্তির প্রতি চরম আকর্ষণ থেকেই টেলিকমিউনিকেশনে পড়ছি। প্রযুক্তির কঠিন বিষয়গুলি সহজভাবে মানুষকে বলতে খুবই ভাল্লাগে। এই ভালোলাগা থেকেই লেখালিখি শুরু। ওয়েব ডেভলপমেন্ট ও নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা আমার নেশা ও পেশা।

মন্তব্য করুনঃ-