ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার: ব্লগিংয়ের জন্য কোনটা ভালো? (WordPress Vs Blogger)

ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার- কোনটি ব্লগিং ওয়েবসাইটের জন্য ভালো প্লাটফরম। ব্লগার VS ওয়ার্ডপ্রেস দুটির বিভিন্ন সমস্যা ও ভালোদিক নিয়ে আর্টিকেলটি।

886 VIEWS

ব্লগার vs ওয়ার্ডপ্রেস

ব্লগিং করার কথা চিন্তা করা মাত্রই, ব্লগারদের মনে একটাই প্রশ্ন!!! কোন প্লাটফর্ম ব্যবহার করব বা কোনো প্লাটফরমে ব্লগিং করলে ভালো হয়?

বর্তমানে ব্লগিং করার অনেক প্লাটফরম আছে। মানুষ অনেক সহজে এর মধ্যে থেকে বেছে নিতে পারে।

করণ সকল নতুন ব্লগাররা সহজে তুলনা করে; কোনটা তার ওয়েবসাইটের জন্য ভালো হবে বুঝতে পারে। কিন্তু অনেক প্লাটফরম তুলনা করার পর ওয়ার্ডপ্রেস নাকি ব্লগার কোনটা ব্যবহার করবে? এখানে পথ হারায়।

ওয়ার্ডপ্রেস ও ব্লগার এই দুটিই হচ্ছে ব্লগিং করার সবচেয়ে জনপ্রিয় ও বড় প্লাটফরম। তাই এই দুটি থেকে একটিকে বেছে নেয়া ব্লগারদের জন্য কষ্টকর।

তবে সুখবর হল: আপনি সঠিক জায়গায় পৌছে গেছেন। আমি আপনাকে দুইটি প্লাটফরমের সকল ইনফরমেশন দিব ও তুলনা করব।

ব্লগিং করার জন্য একটি ব্লগ প্লাটফরমের কি কি গুণ থাকতে হবে?

ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগরের তুলনা করার আগে, আমাদের জানতে হবে একটি ভালো ব্লগিং প্লাটফরমের কি কি গুণ থাকা চাই।

  • সহজে ব্যবহার যোগ্যতা: আপনার দরকার একটি সাদা-সিদা ও সহজে ব্যবহার করা যায় এমন প্লাটফরম। যাতে আপনি খুব সহজে কন্টেন্ট লিখতে ও পাবলিশ করতে পারেন।
  • নমনীয়তা: ব্লগিং প্লাটফরম বা সফটওয়্যার এমন হতে হবে, যাতে সহজে নতুন ফিচার যোগ করা যায়।
  • মনিটাইজ অপশন: টাকা আয় করার জন্য কিছু ফিচার এইটার মধ্যে থাকা দরকার।
  • সাপোর্ট: আপনার ব্লগটি তৈরি করার সময়, ডিজাইন করার সময় বা পরিচালনা করার জন্য সাপোর্ট প্রয়োজন হতে পারে। যদি আপনি আটকে থাকেন বা প্রশ্ন থাকে তবে আপনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এবং দ্রুত সাহায্য পেতে চাইবেন। ভালো সাপোর্টার গ্রুপ থাকা দরকার।

আপনি এই আর্টিকেলটি পড়েই সহজে সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। কোনটা আপনার জন্য বেশি ভালো হবে।

চলুন আমরা ব্লগার ও ওয়ার্ডপ্রেস সম্পর্কে জেনে নেই।

ওয়ার্ডপ্রেস Vs ব্লগারের-আউটলাইন

উপরে উল্লিখিত হিসাবে, ওয়ার্ডপ্রেস এবং ব্লগার বিশ্বের দুটি বহুল ব্যবহৃত ব্লগ পরিচালনাকৃত প্ল্যাটফর্ম।

BuiltWith এর ব্লগ প্রযুক্তি ব্যবহারের পরিসংখ্যান অনুসারে, ওয়ার্ডপ্রেস হ’ল # 1 সর্বাধিক জনপ্রিয় ব্লগ সফটওয়্যার। এটি শীর্ষ 1 মিলিয়ন সাইটের সমস্ত সাইটের প্রায় 38% ব্যবহার করেছে এবং সেই সাইটগুলির মধ্যে সমস্ত ব্লগের 95% অনেক আকর্ষনীয়।

একই প্রতিবেদনটি ব্লগারকে শীর্ষ 1 মিলিয়ন সাইটের প্রায় 1% ব্লগ ব্যবহার করে দ্বিতীয় সর্বাধিক জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম হিসাবে দেখায়।

ওয়ার্ডপ্রেস Vs ব্লগারের
ওয়ার্ডপ্রেস Vs ব্লগারের

উপরের স্ক্রিনশটে দেখানো হয়েছে, ওয়ার্ডপ্রেস অবিচ্ছিন্নভাবে 2005 সালে ব্লগারকে মারধর করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এটি আজও অনেক বেশি জনপ্রিয়।

ওয়ার্ডপ্রেস কি?
ওয়ার্ডপ্রেস কি?

ওয়ার্ডপ্রেস কি?

সহজে বললে ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress) হচ্ছে কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। এটা কিন্তু ওপেনসোর্সও বটে, যার কারণে আপনি এখানে সবকিছু আপনার মনের মতো কাস্টমাইজ করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা খুব সহজে ওয়েবসাইট, অনলাইন শপ ও ব্লগ বানানো যায়। ওয়ার্ডপ্রেস প্রথম ২০০৩ সালে শুরু হয়; বর্তমানে ইন্টারনেটের ৩৮% ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা তৈরি।

WordPress.Org সাইট থেকে ওয়ার্ডপ্রেস ডাউনলোড করতে হবে। আমি ডিটেইলসে বুঝিয়ে বলছি কেন WordPress.com ব্যবহার করবেন না।

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ব্লগিং করতে হলে আপনাকে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল দিতে হবে। ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল দেয়া খুবই সহজ, ইউটিউব ও গুগল থেকে সহজে শিখতে পারেন।

ব্লগার কি?

ব্লগার কি?

ব্লগার হচ্ছে গুগলের দ্বারা চালিত ফ্রি একটি ব্লগিং প্লাটফর্ম। ব্লগার ডট কম Pyra Labs দ্বারা শুরু হয় ১৯৯৯, গুগল এটাকে ২০০৩ সালে কিনে নেয়।

ব্লগার ফ্রি হোস্টিং দেয় এবং ফ্রিতে তাদের সাব-ডোমেইনও দেয়; যা দিয়ে সহজে ফ্রিতে ব্লগিং করতে পারবেন।

ব্লগারের সাব-ডোমেইনে আপনার ব্লগটা হবে এরকম:

www.yourname.blogspot.com

আপনি চাইলে আপানার কাস্টম টপ লেভেড ডোমেইন ব্যবহার করতে পারেন। টপ লেভেল ডোমেইন কিনে সহজে ব্লগারে যোগ করা যায়।

সহজে ব্যবহার যোগ্যতা: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

সকল ওয়েবসাইটের মালিকরা ওয়েব ডেভলপার না, কেউ ব্লগার, বিজনেস ওনার বা শখের বসে ব্লগিং করতে চায়। তাই আমাদের সহজে ব্যবহার করা যায় এমন প্লাটফরম দরকার।

# ব্লগার

ব্লগার খুবই সহজ একটি ব্লগিং টুল। যেটা ব্যবহার করা খুবই সহজ। আপনার শুধুমাত্র একটি জিমেইল একাউন্ট থাকতে হবে।

ব্লগার ডট কমে গিয়ে সাইন আপ করে খুবই সহজে একটি ওয়েবসাইট বানাতে পারেন। একদম ফ্রি!!! আরো জানতে পড়ুন:

ওয়েবসাইট সেট আপ করার প্রক্রিয়া খুবই সিম্পল; কিন্ত আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইনে কাস্টমাইজ করতে দরকার হবে HTML ও CSS দক্ষতা।

# ওয়ার্ডপ্রেস

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করাও খুবই সহজ।

ডোমেইন, হোস্টিং কিনেই যুদ্ধে নেমে পড়ুন। সি-প্যানেলে গিয়ে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করুন। এবার ওয়ার্ডপ্রেসের এডমিন প্যানেলে গিয়ে থিম ও প্লাগিন ইনস্টল করতে হবে।

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট বানানোর জন্য আপনাকে কোডিং স্কিলের দরকার নাই। শুধু ক্লিক স্কিলই যথেষ্ট।

বিজয়ী: ওয়ার্ডপ্রেস

মালিকানা: ওয়ার্ডপ্রেস VS ব্লগার

ব্লগিং প্লাটফরম বাছাই করার সময় মালিকানা বিচার করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনি অনেক কষ্ট করে ব্লগসাইট তৈরি করে, যদি দেখেন সাইটের মালিকানা আপনার নয়।

কেমন লাগবে? নিশ্চয় খারাপ।

# ব্লগারে ব্লগের মালিক কে?

ব্লগার হচ্ছে গুগলের একটি ফ্রি সার্ভিস। যেখানে আপনি ফ্রিতে ও সহজে একটি ব্লগ তৈরি করতে পারবেন।

ব্লগারের কিন্তু অনেক ফিচার রয়েছে। তবে, গুগলই আপনার ব্লগের মালিক থাকবে। তারা চাইলে আপনার ব্লগ ডিলেট করে দেয়ার অধিকার রাখে।

গুগল যদি কখনও ভাবে ব্লগার সার্ভিস তারা ফিরিয়ে নিবে, তখন আপনার ব্লগ অটোমেটিক ডিলেট হয়ে যাবে। যদিও এরকম কোনো সম্ভাবণা নাই।

# ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগের মালিক কে?

ওয়ার্ডপ্রেস একটি ওপেন সোর্স ও ফ্রি সফটওয়্যার। আপনি কিন্তু শুধুমাত্র ওয়ার্ডপ্রেস সফওয়্যার ব্যবহার করছেন।

যেহেতু হোস্টিং ও ডোমেইন সবই আপনার তাই ব্লগের মালিক আপনি নিজে।

কেউ চাইলেও আপনার ওয়েবসাইট / ব্লগসাইটকে ডিলিট করার অধিকার রাখে না। আপনি আপনার ওয়েবসাইটের মালিক হিসেবে, যাচ্ছেতাই করতে পারেন।

বিজয়ী: ওয়ার্ডপ্রেস

নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

ব্লগিংয়ের জন্য প্লাটফরম বাছাই করার জন্য কন্ট্রোল অপশন বিচার করা জরুরী। প্রয়োজনে আপনি কি আপনার সাইটে সবকিছু নিয়ন্ত্রন করতে পারেন।

# ব্লগার

ব্লগারকে খুবই সিম্পল একটি ডিজাইন দেয়া হয়েছে। এটা ব্যবহার করে যাতে যে কেউ পাবলিক ডোমেইনে কোনোকিছু লিখতে পারে।

এখানে কোনো পপআপ অপশন বা ইকমার্সের কোনো অপশন রাখা হয়নি। যার জন্য এটি দিয়ে টাকা আয় করা কষ্টসাধ্য ব্যপার।

# ওয়ার্ডপ্রেস

ওয়ার্ডপ্রেস একটি ওপেনসোর্স সফটওয়্যার। আপনি চাইলে নিজের মতো করে কাষ্টমাইজ করে, যেকোনো ফিচার যোগ করতে পারবেন।

তাছাড়া এখানে কয়েক মিলিয়ন প্লাগিন পাওয়া য়ায়, যেগুলো দিয়ে নতুন নতুন অনেক ফিচার পেয়ে যাবেন।

আপনি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ইকমার্স সাইট বানাতে পারেন, পপআপ ও সোস্যাল শেয়ার এককথায় যা ইচ্ছা তাই বানাতে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেসে অনেক আকর্ষনীয় থিম পাবেন যা দ্বারা সাইটকে অনেক আকর্ষণীয় করা যায়।

বিজয়ী: ওয়ার্ডপ্রেস

সিকিউরিটি: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার
সিকিউরিটি: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

সিকিউরিটি: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

নিরাপত্তার বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয় আমার কাছে। কারণ আপনার সাইট যদি হ্যাক হয়ে যায়। তাহলে এত কষ্ট করে লাভ কি!!

# ব্লগারের সিকিউরিটি

ব্লগার গুগলের আওতাধিন একটি সার্ভিস, এখানে নিরাপত্তা দেয়া গুগলের দয়িত্ব। গুগলের রাবাস্ট ব্যবহার করে আপনার ব্লগারকে অনেক সিকিউর রাখতে পারেন।

ব্লগারে ব্লগিং করলে আপনার চিন্তার কোনো দরকার পড়বে না, যে সাইটের রিসোর্স বা হোস্টিং নিয়ে। আপনাকে শুধু আপনার ই-মেইলের স্ট্রং পাসওয়ার্ড হলেই হবে।

তবে বেশি নিশ্চিন্ত থাকার জন্য ব্লগারে আপনার সাইটের ব্যাকআপ রাখতে পারেন।

# ওয়ার্ডপেসে সিকিউরিটি

ওয়ার্ডপেস অনেক সিকিউর একটি প্লাটফরম; কিন্ত এটি সেল্প হোস্টেড থাকায় আপনার সাইটের দায়িত্ব একান্ত আপনার।

তবে আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে অনেক সিকিউরিটি প্লাগিন পাবেন। যার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের সিকিউরিটি অনেক বাড়াতে পারেন।

নিয়মিত অটো ব্যাকআপ সিস্টেম রাখার অপশন যুক্ত প্লাগিন ইনস্টল দিয়ে রাখুন। এতে আপনার সাইট হ্যাক হয়ে গেলেও ফিরিয়ে আনতে পারবেন।

বিজয়ী: টাই

সাপোর্ট: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

একটি ওয়েবসাইটের অনেক বিষয় আছে; যার জন্য আমাদের অনেকের সাহায্যের দরকার হয়।

যে প্লাটফরমের কমিউনিটি বড় সেখানে অনেক সহজে সাহায্য পাওয়া যায়।

# ব্লগারের সাপোর্ট সিস্টেম

ব্লগার গুগরের দ্বারা পরিচালিত হওয়ার পরও এর ডকুমেন্টেশন খুবই লিমিটেড। তাছাড়া এর কমিউনিটি অনেক ছোট যার কারণে আপনার কোথায় সমস্যা হলে সাহায্য করার লোক নাই।

যেহেতু বেশি মানুষ ব্লগার নিয়ে কাজ করে না; তাই এখানে রিসার্চ কম হয়। যার কারণে ডেভলপমেন্ট অনেক কম ও লিমিটেড।

# ওয়ার্ডপ্রেসের সাপোর্ট সিস্টেম

ওয়ার্ডপ্রেসে অনেক বড় ও একটিভ কমিউনিটি রয়েছে। ওয়ার্ডপ্রেসের প্রশ্নোত্তর ফরম থাকায়, যে কেউ সমস্যা নিয়ে প্রশ্ন করতে পারে।

প্লাগিন বা থিমসহ যেকোনো কিছু নিয়ে প্রশ্ন করলে থিম বা প্লাগিন ক্রিয়েটর বা সাধারণ ডেভলপার সমস্যার সমাধান দেয়।

আরো যদি প্রিমিয়াম থিম বা প্লাগিন ব্যবহার করলে ডেডিকেটেড সাপোর্ট পাওয়া যায় ক্রিয়েটরদের তরফ থেকে।

তাছাড়া ওয়ার্ডপ্রেসের কমিউনিটি বড় হওয়ায়, ইউটিউবে অনেক ওয়ার্ডপ্রেসের টিউটোরিয়াল পারেন।

ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ থেকেও হেল্প নিতে পারবেন।

বিজয়ী: ওয়ার্ডপ্রেস

ভবিষ্যত: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

ব্লগ নিয়ে মানুষের অনেক চিন্তা ভাবনা থাকে। মানুষ ব্লগে কাজ করার একটাই কারণ ভবিষ্যতে টাকা আয় করা যাবে বা ভবিষ্যতে নিজের একটি সৃতি।

# ব্লগারের ভবিষ্যত কি?

ব্লগার গুগলের একটি সম্পদ বা সেবা, যাই বলেন না কেন। আপনি লক্ষ করলে দেখবেন, ব্লগারের কিন্তু খুব একটা আপডেট আসে না।

ব্লগার গুগলের সেবা হওয়ায়, তারা কতদিন তাদের সেবা চালু রাখবে, তা একান্ত গুগলের সিদ্ধান্ত।

গুগল চাইলে তাদের এই সেবাটি সাটডাউন/ বন্ধ করে দিতে পারে। তাই আপনার ব্লগের ভবিষ্যৎ কি হবে তা, একান্ত গুগল ঠিক করবে!! আপনি নন।

# ওয়ার্ডপ্রেসের ভবিষ্যৎ কি?

ওয়ার্ডপ্রেস একটি ওপেন সোর্স সফটওয়্যার। তাই এখানে কোনো ইন্ডিভিজুয়াল কোম্পানী সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না।

তাই ওয়ার্ডপ্রেস কখন বন্ধ হবে বা কখন খোলা হবে সবকিছু ঠিক করবে কমিউনিটি। মানে আপনার, আমার মতো সাধারণ মানুষ।

তাছাড়া কেউ যদি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার নাও করে, তাও আপনার সাইট আপনি রাখতে পারবেন। কারণ আপনার হোস্টিং আপনার সবকিছু। নতুন সফটওয়্যার আপডেট না দিলেই হল 😀

পোর্টেবলিটি: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার
পোর্টেবলিটি: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

পোর্টেবলিটি: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

আপনি একটি সাইট তৈরি করার পর, আপনার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হতেই পারে। যে আমি এই প্লাটফরম ব্যবহার করব না অন্যটা করব। এটাও কিন্তু অনেক বড় একটি বিষয় প্লাটফরম পছন্দ করার ক্ষেত্রে।

ব্লগার

ব্লগার প্লাটফরম থেকে অন্য প্লাটফরমে আপনার সাইট ট্রান্সফার করা অনেক জটিল। সবসময় ভয় থেকেই যায় এসইও ড্রপ করার।

যদিও ব্লগার আপনার কন্টেন্টের এক্সপোর্ট ও ইম্পোর্ট করার সুবিধা দেয়। সাবস্ক্রাইবার হারানোর ভয় থেকেই যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করলে আপনার সাইট যেকোনো সময় ট্রান্সফার করতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করলে নতুন ডোমেইন ব্যবহার করলেও আপনার সাইটের সমস্যা হবে না।

বিভিন্ন প্লাগিন স্থায়ী ট্রান্সফারের অপশন দেয়; কোনো রকম এসইও ড্রপ ছাড়াই।

বিজয়ী: ওয়ার্ডপ্রেস

মূল্য: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার

ব্লগিং করার জন্য খুব বেশি টাকার দরকার হয় না। আপনি যদি মনে করেন ব্লগিং করাতে অনেক টাকার দরকার হয়। তবে আপনি ভুল শুনেছেন।

ব্লগারে ওয়েবসাইট বানাতে খরচ কেমন?

আমি উপরে অনেকবার বলেছি, ব্লগিং গুগলের একটি ফ্রি সেবা। মানে ব্লগারে আপনি ফ্রিতে ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন।

গুগল আপনার ওয়েবসাইট হোস্ট করবে; সাথে তারা ফ্রিতে তাদের সাব ডোমেইন ও দিচ্ছে। যাতে আপনি পুরাটাই ফ্রিতে ব্লগ করতে পারেন।

আপনার ডোমেইন নেমটি পছন্দ না হলে, কাস্টম ডোমেইন যোগ করতে পারেন। যার দাম পড়বে ৳৮০০ টাকার মতো।

ওয়ার্ডপ্রেসে ওয়েবসাইট বানাতে খরচ কেমন?

ওয়ার্ডপ্রেস একটি ফ্রি সফটওয়্যার; এটা আপনাকে ডোমেইন হোস্টিং কিছুই দিবে না।

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে সাইট বানাতে চান তবে, ডোমেইন ও হোস্টিং আপনার নিজের টাকা দিয়ে কিনতে হবে।

মোটামুটি ২০২০ সালের ধারণা অনুযায়ী ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে খরচ হবে ৳৩০০০ টাকার মতো।

আপনি ভালো মানের হোস্টিং নিতে গেলে একটু খরচ বেশি পড়তে পারে।

বিজয়ী: ব্লগার

NOTE: আমি পরো টিউটেরিয়াল জুড়ে WordPress.Org ও Blogger.Com এর তুলনা করেছি। WordPrss.Com নিয়ে আমি কোনো কথা বলিনি। ব্লগিং করার জন্য আমি কাউকেই WordPress.Com রিকমেন্ড করি না।

Authore

ফলাফল: ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার – কোনটা ভালো?

ব্লগার ও ওয়ার্ডপ্রেস দুটোই বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্লগিং প্লাটফরম। কিন্তু আপনাকে ব্লগিং করার জন্য যেকোনো একটা পছন্দ করতে হবে।

আপনার উদ্দেশ্য যদি সাধারণ ব্লগিং করা বা শুধুমাত্র গল্প শেয়ার করা তাহলে ব্লগারে শুরু করতে পারেন।

আপনার যদি প্রফেশনাল ব্লগ করার ইচ্ছা থাকে, যেখান থেকে টাকা আয় করতে চান। তাহলে ওয়ার্ডপ্রেসে কাজ করতে পারেন।

অনলাইন শপ, এফিলিয়েট ওয়েবসাইট, মেম্বারশিপ ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস বেস্ট সলুউশন।

আশা করি, ওয়ার্ডপ্রেস vs ব্লগার আর্টিকেলটি আপনাকে প্লাটফরম বেছে নিতে সাহায্য করবে।

শেয়ার করতে পারেন :L

প্রযুক্তির প্রতি চরম আকর্ষণ থেকেই টেলিকমিউনিকেশনে পড়ছি। প্রযুক্তির কঠিন বিষয়গুলি সহজভাবে মানুষকে বলতে খুবই ভাল্লাগে। এই ভালোলাগা থেকেই লেখালিখি শুরু। ওয়েব ডেভলপমেন্ট ও নেটওয়ার্কিং প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা আমার নেশা ও পেশা।

মন্তব্য করুনঃ-